Daraz Brings Exciting 11.11 Sale Again 1 469

daraz 11.11 sale

This 11th November, 2020, Daraz is hosting the biggest sale of the year 2019 for the first time in history! It is the 11.11 Sale! November 11 is known to be China’s Single’s Day and is the biggest shopping spree of the world. Alibaba, China’s greatest e-commerce giant, chose this day to organize a large scale online sale. Since then, it became an annual shopping festival where sales are held for 24 hours featuring steep discounts and you get your desired products at a steal price! This year, you will be experiencing daraz 11.11 sale and 11.11 deals at Daraz.com.bd. Running out of some clothes? Or planning to upgrade your mobile phone? Your house needs a revamp? Or you need some home appliances? The Daraz 11.11 Sale will be your ultimate solution this year! It is going to be a shopping festival like no other. Get discounted deals on almost all the top selling products you wish to purchase. Just make sure you mark your calendars because the sale begins on 11th November 2020 at midnight and ends in exactly 24 hours.

Previous ArticleNext Article

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অনলাইন শপিং ওয়েবসাইট – বাংলাদেশের সেরা ১১ 0 872

অনলাইন শপিং ওয়েবসাইট

অনলাইন শপিং ওয়েবসাইট কি?

অনলাইনে কেনাকাটা করার সহজ ও সেরা মাধ্যম হল অনলাইন শপিং সাইট(Online shopping sites)। একবিংশ শতাব্দীতে আজ সারা পৃথিবী ব্যাপী বেশ জনপ্রিয় কেনাকাটার মাধ্যম হল অনলাইন শপ। সময় বাঁচিয়ে, রোদ কিংবা জ্যাম এড়িয়ে ঘরে বসে বাজার দরের চেয়ে কম দামে যদি পণ্য অর্ডার করে যদি হোম ডেলিভারি পাওয়া যায়, তবে সে সুযোগ কে নিতে চাইবে না? আর কেবল সাধারণ পণ্য না, যদি সুযোগ থাকে মুভি টিকেট, বিমান-রেল-বাস-লঞ্চের টিকেট লাইনে না দাঁড়িয়ে ঘরে বসে কাটার, তবে যে কেউই তো সেই সুযোগ নিতে চাইতেই পারে!

এবার জেনে নেয়া যাক দেশের সেরা ১১ টি জনপ্রিয় অনলাইন শপিং ওয়েবসাইট সম্পর্কে

১। দারাজ বাংলাদেশ

২০১৪ সালে প্রতিষ্ঠিত দারাজ বাংলাদেশ(Daraz BD) এখন বিশ্বের সবচেয়ে বড় অনলাইন শপিং কোম্পানি আলিবাবার অঙ্গ সংগঠন। দীর্ঘ সময় ধরে দারাজ বাংলাদেশী গ্রাহকদের কাছে সবচেয়ে আস্থাভাজন নাম। দারাজে পাওয়া যায় না এমন পণ্য নেই। আর তাদের তো সুনাম রয়েছে সবচেয়ে দ্রুতগামী ডেলিভারি করার। অফার, ডিল, ডিসকাউন্ট, ডেলিভারি সময়, পণ্যের বৈচিত্র্যতা, অরিজিনাল ব্র্যান্ডের পণ্য সহ বাহারি সুবিধায় দারাজ থাকবে তালিকার ১ নম্বরে।

২। ইভ্যালি ডট কম

দেশীয় কোম্পানী ইভ্যালি(Evaly) ২০১৯ সাথে প্রতিষ্ঠিত হয়েই অবিশ্বাস্য অফার দিয়ে গ্রাহকদের খুব কাছে পৌঁছতে পেরেছে। যদিও তাদের পণ্য ডেলিভারি করতে অন্য প্রতিষ্ঠান গুলোর চেয়ে একটু বেশি সময় লাগে। কিন্তু এ কথা সত্য ইভ্যালি অফার এর মত এত ক্রেজি অফার দিতে পারেনি কেউ বাংলাদেশে। তাই কেবল অফার দিয়েই ক্রেতাদের ধরে রাখতে একটুও বেগ পেতে হয়নি ইভ্যালি ডট কম ডট বিডি’র। ই-ভ্যালি থাকছে তালিকার ২ নম্বরে।

৩। বিকাশ

বিকাশ(bKash) বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় মোবাইল ফোন ভিত্তিক টাকা স্থানান্তর (এমএফএস) সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান। এটি বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অর্থায়ন প্রতিষ্ঠান। এটি ব্যাঙ্ক একাউন্টবিহীন ব্যক্তিদের আর্থিক সেবা প্রদানের লক্ষ্যে চালু করা হয়েছিল। আর অনলাইন পেমেন্ট বা অনলাইন শপিং এর সবচেয়ে বড় মাধ্যম এখন বিকাশ। নতুন গ্রাহকদের জন্য থাকছে জনপ্রিয় মোবাইল ব্যাংকিং সার্ভিস বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম

৪। আজকের ডিল

আজকের ডিল(AjkerDeal) বাংলাদেশে ই-কমার্স শিল্প শুরুর প্রথম দিকের প্রতিষ্ঠান। বৃহৎ চাকুরি খোঁজার পোর্টাল বিডিজবসের সহ প্রতিষ্ঠান আজকের ডিল ডট কম। প্রায় সকল ক্যাটেগরির পণ্য অনলাইনে কেনাকাটার অন্যতম জনপ্রিয় অনলাইন শপ আজকের ডিল।

৫। উবার বাংলাদেশ

উবার (Uber) মোবাইল স্মার্টফোনের অ্যাপ-ভিত্তিক ট্যাক্সি সেবার নেটওয়ার্ক। আমেরিকা ভিত্তিক অনলাইন পরিবহন নেটওয়ার্ক কোম্পানি উবারের কোন নিজস্ব ট্যাক্সি নেই। উবারের কিছু নির্ণায়ক যোগ্যতা বা শর্ত পূরণ করে ব্যক্তিগত গাড়ি আছে এমন যে কোন ব্যক্তিই উবার টিমের সাথে যুক্ত হতে পারেন। অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশেও অনলাইনের মাধ্যমে গাড়ি সেবা নেয়ার সুবিধা এখানেও জনপ্রিয়তা পেয়েছে।

৬। সহজ ডট কম

সহজ ডট কম(Shohoz) দেশীয় অর্থায়নে প্রতিষ্ঠিত আরেকটি জনপ্রিয় অনলাইন প্রতিষ্ঠান। রাইড সেবা, ফুড সেবা থেকে শুরু করে লঞ্চ কেবিন কিংবা বাস টিকেটিং – গ্রাহকরা সব কিছুই পাবেন সহজ থেকে।

৭। চাল ডাল

চালডাল ডট কম(Chaldal) বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় গ্রোসারি অনলাইন শপ। ২০১৩ সালে প্রতিষ্ঠিত চালডালে ফ্রেশ ফুড, সবজী, মাংস, ডেইরি, গ্রোসারি, ব্যক্তিগত পণ্য থেকে গৃহস্থালি পণ্য সবই হোম ডেলিভারি করে থাকে। তবে প্রতিষ্ঠানটি এখনো ঢাকার বাইরে তাদের সেবা প্রদান শুরু করতে পারেনি।

৮। বিডি টিকেটস

ডমেস্টিক বাস, গ্রীন লাইন ওয়াটার বাস, বিমান টিকেট কাটার সবচেয়ে সহজ উপায় হল বিডি টিকেটস ডট কম। স্টেশনের লম্বা লাইন এড়িয়ে এখন ঘরে বসেই ডিসকাউন্ট সহ অনলাইন টিকেটিং সেবা দিচ্ছে বিডি টিকেটস(BDTickets)।

৯। পিকাবু ডট কম

২০১৬ সালে প্রতিষ্ঠিত পিকাবু ডট কম(Pickaboo) মোবাইল ফোন, গ্যাজেট, কিচেন অ্যাপ্লায়েন্স ও ইলেক্ট্রনিকস এর জন্য বেশ জনপ্রিয় অনলাইন শপ। দ্রুতগতির হোম ডেলিভারির জন্য পিকাবু বেশ খ্যাত।

১০। আলিশা মার্ট

আলিশা মার্ট(Alesha Mart) বাংলাদেশের অনলাইন শপিং খাতের সর্বশেষ সংযোজন। ২০২১ সালে আবির্ভুত হয়েই বেশ সাড়া ফেলেছে বাংলাদেশী গ্রাহকদের মাঝে। এখান থকে প্রায় সকল ক্যাটেগরির পণ্যই অনলাইনে কেনাকাটা করা যায়।

১১। পাঠাও

পাঠাও(Pathao) অনলাইনের মাধ্যমে রাইডশেয়ারিং সেবাদানকারী একটি বাংলাদেশী কোম্পানি। এটি মূলত বাংলাদেশের প্রধান ৩ শহর ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেটে তাদের রাইড শেয়ারিং সেবা দিয়ে থাকে। বাংলাদেশের বাইরে নেপালেও পাঠাও সেবা দিয়ে থাকে।

গেমস প্রেমীদের জন্য দারাজ ফার্স্ট গেইম 0 372

দারাজ ফার্স্ট গেইম

দেশের জনপ্রিয় অনলাইন মার্কেটপ্লেস এবং আলিবাবা গ্রুপের দক্ষিণ এশীয় ই-কমার্স অঙ্গ সংগঠন দারাজ চালু করল দারাজ ফার্স্ট গেইমস (ডিএফজি) নামক অভিনব একটি গেইমিং প্ল্যাটফর্ম যা রেসিং, অ্যাকশন, শুটিং এবং আর্কেডসহ বিভিন্ন ধরণের ফ্রি-টু-প্লে ক্যাজুয়াল গেইমের অ্যাক্সেস সরবরাহ করে।

নতুন এই গেইমিং প্ল্যাটফর্মটি লক্ষ লক্ষ বাংলাদেশিকে ঘরে বসে সামাজিক দূরত্ব অনুশীলনকালীন অনলাইন টুর্নামেন্টের মাধ্যমে সংযোগ স্থাপনে সহায়তা করবে। এ ছাড়া ডিএফজি ব্যবহারকারীদের জন্য থাকছে দারাজ ওয়ালেটে ৩৫,০০০ টাকা পর্যন্ত আকর্ষণীয় পুরস্কার এবং ভাউচার জেতার সুযোগ।

গত কয়েক মাস ধরে সামাজিক দূরত্ব অনুশীলন প্রক্রিয়াটি গেইমিং ইন্ডাস্ট্রিতে একটি অভূতপূর্ব উন্নতি এনেছে এবং ডিজিটাল অ্যাডপশনের হার বৃদ্ধির ক্ষেত্রেও উল্লখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছে। গেইমিং অ্যাপগুলো ঘরে বসে বিনোদনের প্রধান জনপ্রিয় উৎস হয়ে উঠেছে। বাংলাদেশি গ্রাহকদের মধ্যে এ জাতীয় বিনোদনের ব্যপক আগ্রহের ফলে তাদের চাহিদা মেটাতে দেশের অনলাইন শপিং জায়ান্ট দারাজ, ভারতের শীর্ষস্থানীয় গেমিং প্ল্যাটফর্ম ফার্স্ট গেইমসের সহযোগিতায় ডিএফজি চালু করছে।

দারাজ (daraz.com.bd) প্রতিনিয়তই গ্রাহকেদের নতুন ধরণের অভিজ্ঞতা তৈরির জন্য উদ্ভাবনী পন্থা অবলম্বন করে যা শুধুমাত্র কেনাকাটার মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। গেমিফিকেশন সেগমেন্টটি দারাজের জন্য একটি নতুন উদ্ভাবনের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে দাঁড়িয়েছে এবং প্রতিষ্ঠানটি এই ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী যে ডিএফজি শীঘ্রই বাংলাদেশের একটি শীর্ষস্থানীয় বিনোদন চ্যানেলে পরিণত হবে যেখানে প্রফেশনাল প্লেয়ার (পেশাদার) এবং ক্যাসুয়াল প্লেয়ার উভয়ই বিভিন্ন রকমের গেইম উপভোগ করতে পারবে।

ডিজিটাল গেমিফিকেশন ক্ষেত্রে সুপরিচিত পেটিএমের ফার্স্ট গেইমসের সাথে চুক্তির ফলে দারাজ (daraz.com.bd) এখন তাদের উন্নতমানের প্রযুক্তির অ্যাক্সেস পাবে এবং অনেক বছরের অভিজ্ঞতাকেও কাজে লাগাতে পারবে।

এই উপলক্ষ্যে দারাজ বাংলাদেশের (daraz.com.bd) হেড অফ ট্রাফিক অপারেশনস বারিশ খন্দকার বলেন- “আমাদের লক্ষ্য দারাজ ব্যবহারকারীদের জন্য সেরা গ্লোবাল গেইমগুলো আনা ও তাদের সর্বাধুনিক কম্পেটিটিভ ফর্ম্যাটগুলি সরবরাহ করা। আমরা জানি আমাদের দেশে ডিজিটাল এন্টারটেইমেন্টের চাহিদা ব্যাপক তাই আমরা নিশ্চিত করতে চাই যেন গ্রাহকরা সহজেই অ্যাক্সেস করতে পারেন। আমরা এই উদ্যোগের মাধ্যমে দেশের প্রযুক্তি শিল্পের উন্নয়নে আরও সহায়তা করতে সক্ষম হবো।

পেটিএম ফার্স্ট গেমসের সিওও সুধাংশু গুপ্ত বলেছেন, “মোবাইল গেমারদের জন্য সবচেয়ে আকর্ষণীয় এবং উদ্ভাবনী গেইম আনার মাধ্যমে সেরা অভিজ্ঞতা প্রদান করাই আমাদের লক্ষ্য। মোবাইল গেইমিং কেবল ভারতে নয়, অনেক উন্নয়নশীল দেশগুলিতে প্রসারিত হচ্ছে এবং আমরা একই যাত্রায় অংশগ্রহণকারীদের সাথে চুক্তিবদ্ধ হতে আগ্রহী। আমরা দারাজের সাথে অংশীদারিত্বের মাধ্যমে বাংলাদেশে একটি বিশ্বমানের গেমিং অভিজ্ঞতা চালু করতে পেরে রোমাঞ্চিত।

লুডো, নিনজা ডুয়ো, ফাইভ ইন অ্যা রো-এর মতন ১৯টিরও বেশি আকর্ষণীয় ও জনপ্রিয় গেইমের মাধ্যমে ডিএফজি গেইমাররা সারা দেশ থেকে তাদের বন্ধুদের সাথে অনলাইনে টুর্নামেন্ট খেলতে পারবে এবং তাদের ওয়ান ভার্সেস ওয়ান (1v1) মোডে চ্যালেঞ্জও করতে পারবে। বাংলাদেশি গেমারদের পছন্দের তালিকা যাচাই করে আগামী দিনে কিছু ফ্যান্টাসি গেইমও অন্তর্ভুক্ত করা হবে এই প্ল্যাটফর্মটিতে। দারাজ শীঘ্রই একটি রিডেম্পশন সেন্টার চালু করবে যেখানে গ্রাহকরা গেইমের উইনিং পয়েন্ট গুলো ব্যবহার করে বিভিন্ন পরিসেবা গ্রহণ করতে পারবে।

Most Popular Topics

Editor Picks