পহেলা বৈশাখের প্রস্তুতিঃ সহজ ৪টি উপায় মাথায় রাখুন 0 1192

বৈশাখের প্রস্তুতি

পহেলা বৈশাখ বাঙালি জীবনের একটি প্রধান উৎসব- বাংলা বছরের প্রথম দিন। এই দিন নতুন বছরকে বরণ করে নেয়ার জন্য সকাল থেকেই উৎসবের সাজে সাজতে থাকে গোটা দেশ। নারী-পুরুষেরা ঐতিহ্যবাহী শাড়ি ও পাঞ্জাবী পরে উদযাপন করতে বের হয় সম্রাট আকবর প্রচলিত এই নববর্ষকে। পহেলা বৈশাখের দিনে বিভিন্ন মেলা ও বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মাধ্যমে পালন করা হয় বৈশাখ মাসের এই প্রথম দিনটিকে।

চলুন এক নজরে দেখে নেওয়া যাক পহেলা বৈশাখ পালনের প্রস্তুতি হিসেবে খেয়াল রাখবেন যে ৪টি বিষয়:


১) নতুন পোশাক
নতুন পোষাক বলতে মূলত শাড়ি ও পাঞ্জাবী কেনার দিকেই তরুণ-তরুণিদের আগ্রহ বেশি। তবে মেয়েদের সালোয়ার কামিজ বা ছেলেদের শার্ট-প্যান্টও বেশ জনপ্রিয় পোষাক বৈশাখের। এক্ষেত্রে রঙের দিকে লক্ষ্য রাখা দরকার। উৎসবের রঙ হিসেবে লাল বা অন্য যেকোন উজ্জ্বল রঙই ভালো মানাবে। তাছাড়া পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে প্রিয়জন বা বাবা-মাকেও উপহার দিতে পারেন শাড়ি-পাঞ্জাবী। কারণ রঙে রঙে উৎসব মাতাতে নতুন পোষাক দিতে পারে চমৎকার আবহ।


২) কোথায় ঘুরতে যাবেন আগেই ঠিক করা
নববর্ষের দিনে অনেকেরই ঘোরার প্ল্যান থাকে- কখনো বন্ধুদের নিয়ে আবার কখনো প্রিয়জনকে সাথে নিয়ে। রমনা বটমূল, টিএসসি, শিল্পকলা একাডেমি সহ বিভিন্ন স্থানে পহেলা বৈশাখের মেলা সহ বিভিন্ন ধরণের আয়োজন থাকে। এক্ষেত্রে আগেই ঠিক করে নিলে বৈশাখী ঘোরাফেরা হয়ে উঠতে পারে আরো উপভোগ্য। তবে ঘোরার জন্য অধিক ভীড়ের জায়গাগুলো এড়িয়ে চলাটাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে।


৩) ঐতিহ্যবাহী খাবারের আয়োজন
পহেলা বৈশাখ পালন করবেন কিন্তু পান্তা-ইলিশ খাবেন না, তা কি হয়? নববর্ষ উপলক্ষে ঘরে ঘরে আয়োজন করা হয় বাঙালি ঐতিহ্যবাহী খাবারের। যেহেতু এদিন সরকারী ছুটি, তাই বাসার সবাই মিলে একসাথে বসে এরকম একটা ভোজন উৎসবের আমেজ বাড়িয়ে তুলতে পারে অনেকগুন। এক্ষেত্রে প্রস্তুতি হিসেবে ঘরের বাজার-সদাই আগেই করে রাখতে হবে। চেষ্টা করবেন- দাম ও মানের একটা ভারসাম্য বজায় রাখতে।


৪) প্রিয়জনকে উপহার
উপহার ছাড়া কোনো উৎসবই যেন ঠিক জমে না। পহেলা বৈশাখও এর ব্যতিক্রম না। দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখার সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে প্রিয় মানুষটির মুখে হাসি ফোটানো। আর এই কাজটি পৃথিবীতে উপহারের চেয়ে ভালো কেউ পারে না। তাই স্পেশাল মানুষটির জন্য একটি চমৎকার উপহার আপনার দিনটিকেও করে তুলতে পারে অনন্য।

ভুরি ভুরি পহেলা বৈশাখ পালনের টিপস নয়, বরং এই কয়টি বিষয় খেয়াল রাখলেই আপনি পেতে পারেন দারুণ একটি পহেলা বৈশাখ। কিন্তু আমরা অনেকেই কোথায় থেকে বৈশাখের এইসব কেনাকাটা করবো তা নিয়ে সংশয়ে থাকি- এক্ষেত্রে অনলাইনে পহেলা বৈশাখ শপিং হতে পারে আপনার জন্য সেরা একটি সমাধান। কারণ এখন ঘরে বসেই পহেলা বৈশাখের সেরা কেনাকাটা হচ্ছে আরো সহজে। শুভ নববর্ষ ১৪৩১!

জনপ্রিয় সার্চঃ পয়লা বৈশাখ, পহেলা বৈশাখ, বাংলা নববর্ষ, শুভ নববর্ষ

Previous ArticleNext Article

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভালোবাসা দিবসে ঘুরতে যাওয়ার ৫টি সেরা জায়গা 0 567

“চলো না ঘুরে আসি অজানাতে….”- না, এই আধুনিক সময়ে যখন সবাই আমরা লোকেশন ট্র্যাকার কিংবা জিপিএস এর আওতায়, তখন অজানাতে ঘুরতে যাওয়াটা অনেকটা স্বপ্নের মতোই। এই ব্যস্ত নগরী থেকে একটু স্বস্তি পেতে প্রিয় মানুষটিকে নিয়ে এই ভালবাসা দিবসে ঘোরাঘুরি করে আসুন দূরে কোথাও।  নিশ্চয়ই সবার মতো আপনিও চিন্তিত কোথায় যাওয়া যায় ভালোবাসার মানুষটিকে নিয়ে এই ভ্যালেন্টাইনস ডে(Valentines Day)-তে? আপনাকে চিন্তামুক্ত করে দিতে আমাদের আজকের আয়োজন “ভালোবাসা দিবসে ঘুরতে যাওয়ার ৫টি বিশেষ স্থান”। জেনে নিন এখনি:

১। কক্সবাজার

দেশের মধ্যে ঘুরতে যাওয়ার সর্বোত্তম দর্শনীয় জায়গা হলো কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত। ভালোবাসার মানুষটিক নিয়ে দেখতে পারেন সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত। আর যদি সমুদ্র দেখার পাশাপাশি কম খরচে পাওয়া যায় একটুখানি বিলাসিতা তাহলে মন্দ কি। বিভিন্ন অনলাইন শপ ও ট্রাভেল প্রতিষ্ঠান দিচ্ছে ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে সব থেকে সর্বোত্তম কক্সবাজার ট্যুর প্যাকেজ।

২। নেপাল

যারা পাহাড় ভালোবাসেন তাদের জন্য নেপাল অন্যতম। হিমালয়ের হাতছানি আর পুরোনো বৌদ্ধ সভ্যতা দুটোই আপনাকে আনন্দিত করে তুলবে। ভালোবাসার মানুষটির সাথে নিজেকে মানিয়ে নিতে পারেন নেপালি পোশাকে। আগাম বুকিং অনেক সময় আপনার ভ্রমণকে স্বাচ্ছন্দ এবং সামর্থ্যের মধ্যে এনে দিচ্ছে খুব সহজেই। আপনার জানার সুবিধার্থে বলছি, নেপাল সরকার বাংলাদেশী নাগরিকদের অন-অ্যারাইভাল ভিসা সরবরাহ করে থাকে, অর্থাৎ আগে থেকে এমব্যাসি তে ঘোরার কোন দরকার নেই।

৩। ভুটান

ভ্রমণ স্থানগুলোর মধ্যে আরেকটি বিশেষ দেশ হলো ভুটান। সর্পিল রাস্তা আর পাহাড়ে ঘেরা এই দেশটির মানুষজন ভীষণ ভালো এবং অতিথিপরায়ণ। বাংলাদেশের প্রতিবেশী এই দেশটিতে যেতে তেমন একটা খরচ হয় না, এমনকি বাসে করেও ঢাকা থেকে ভ্রমণ করা যায় ধাপে ধাপে। এখানে রয়েছে বিভিন্ন জাদুঘর, আকর্ষনীয় পার্ক এবং ঐতিহাসিক কিছু স্থাপনা।

৪। মালদ্বীপ

রোমান্টিক সমুদ্র সৈকত হিসেবে সবার প্রথমে যে নামটা মাথায় আসে টা হলো মালদ্বীপ। চারিদিক নীলাভ জলরাশি আর মাঝে এক টুকরো স্বর্গরাজ্য। কাপল হানিমুন, ফ্যামিলি ট্যুর কিংবা ভ্যালেন্টাইন্স ডে – উপলক্ষ যাই হোক না কেন ভালোবাসা উদযাপনের অন্যতম পারফেক্ট জায়গা এটি। সমুদ্রের পাড়ে ক্যান্ডেল লাইট ডিনার এর কথা তো উল্লেখ না করাই ভাল।

৫। থাইল্যান্ড

পাতায়া কিংবা ব্যাংকক যাই হোক আপনার পছন্দ, এই কথা মানতেই হবে যে সকল ভ্রমণপিপাসু মানুষের কাছে থাইল্যান্ড হলো বহুল আকাঙ্খিত দেশ। এখানে সমুদ্রের হাতছানি এড়ানো দায়। আর এই ভ্যালেন্টাইন্স ডেতে ভালোবাসার মানুষকে নিয়ে ঘোরার অন্যতম জায়গায় হতে পারে পাতায়া এবং ব্যাংকক।

তো আপনি পরিবার নিয়ে যাচ্ছেন কোথায়? আপনার পছন্দ আমাদের জানিয়ে কমেন্ট করুন কমেন্ট বক্সে।

আরো পড়ুনঃ যে ৫টি ভুল হানিমুনে গিয়ে প্রত্যেক পুরুষই করেন!

সাবাস বাংলাদেশ – আসিফ আকবর – গানের কথা 0 1108

shabash bangladesh lyrics

গানের শিরোনামঃ সাবাস বাংলাদেশ – (Besh Besh Shabash Bangladesh Cricket Song by Asif Abbar)
কন্ঠঃ আসিফ আকবর
কথাঃ সোহেল আরমান
সুরঃ ইবরার টিপু
অ্যালবামঃ কেন তুমি সুখে থাকবে
প্রকাশকালঃ ২০০৪
ব্যানারঃ সাউন্ডটেক

Asif Akbar Sketch

গানের কথাঃ

বাংলাদেশ, বাংলাদেশ, বাংলাদেশ, বাংলাদেশ……

ও……
বেশ বেশ বেশ সাবাস বাংলাদেশ
যাও এগিয়ে আমার বাংলাদেশ
ও……
বেশ বেশ বেশ সাবাস বাংলাদেশ
যাও এগিয়ে আমার বাংলাদেশ
বেশ বেশ বেশ সাবাস বাংলাদেশ
যাও এগিয়ে আমার বাংলাদেশ

তাকধিনাধিন ধিন ধিন তা,
প্রাণপণে লড়ে যা,
জয় হবে নিশ্চিত, দুঃখ ভুলে যা(২)
বেশ বেশ বেশ সাবাস বাংলাদেশ
যাও এগিয়ে আমার বাংলাদেশ

বাংলা মায়ের দামাল ছেলে
খেলবে ছয়ে আর চারে
জয়ের নেশায় হেসে খেলে
ভাঙ্গবে উইকেট বারে বারে(২)

ও……
দুলছে সবাই, গাইছে সবাই
করতালি মাঠে
বিশ্বকাপের স্বপ্ন দ্যাখে
প্রাণে জোয়ার ওঠে(২)

বেশ বেশ বেশ সাবাস বাংলাদেশ
যাও এগিয়ে আমার বাংলাদেশ
বেশ বেশ বেশ সাবাস বাংলাদেশ
যাও এগিয়ে আমার বাংলাদেশ……

উল্লেখ্য, ক্রিকেট পাগল জাতি বাংলাদেশীদের জন্য ক্রিকেট সম্পর্কিত এই সাবাশ বাংলাদেশ গানটি কেবলই একটি গান নয়। এটির সাথে জড়িত ক্রিকেট প্রেমী বাংলাদেশীদের আবেগ, ক্রিকেটের প্রতি ভালবাসা। ক্রিকেট খেলা হলেই যেন এ গানটি হয়ে যায় এক টুকরো বাংলাদেশ। ক্রিকেটের আবেগে নির্মিত এ গানটির (সাবাস বাংলাদেশ lyrics) লিরিক দেখে সবাই গুন গুন করে অনুপ্রেরণা দিক ক্রিকেট কে। এগিয়ে যাক বাংলাদেশ ক্রিকেট। সাবাশ বাংলাদেশ!