হজমের সমস্যা দূর করবে যেসব খাবার 0 765

হজম শক্তি বৃদ্ধির উপায়

হজমের সমস্যায় ভুগছেন এমন মানুষের সংখ্যা কম নয়। মাঝে মধ্যেই একটু বেশি খেয়ে ফেললে কিংবা স্বাভাবিকের চাইতে একটু বেশি ভাজাপোড়া খাবার খাওয়ার অভ্যাস থাকলে এ সমস্যা দেখা দিতে পারে। ফলে সারাদিনই কেটে যায় অশান্তিতে। তবে অনেকেই হয়তো জানেন না হজম সমস্যা সমাধানের রয়েছে কিছু প্রাকৃতিক সহজ উপায়।

ছয়টি সহজ উপায় কাজে লাগিয়ে হজমশক্তি বাড়িয়ে নিন আর মুক্ত থাকুন হজম সংক্রান্ত নানা সমস্যা থেকে।

১। শাকসবজির পরিমাণ বাড়ানো

শাকসবজি খেলে হজমের সমস্যা আপনা আপনিই অনেকটা কমে আসে। কারণ শাকসবজি দ্রুত হজম হয় এবং হজমশক্তি বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে। সবচেয়ে ভালো হয় যদি সবজি কাঁচা খাওয়া যায়। এতে হজমশক্তি আরও উন্নত হয়।

২। খাবার ভালো করে চিবিয়ে খাওয়া

অনেকেই খাবার দুয়েকবার চিবিয়ে গিলে ফেলেন। এতে হজমের সমস্যা অনেক বেশি বেড়ে যায়। এই কাজটি হজমের সমস্যা বাড়িয়ে তোলে। তাই খাবার খাওয়ার সময় যতটা বেশি চিবিয়ে খাওয়া যায় ততোই আপনার হজমের জন্য ভালো।

৩। গ্রিন টি

হজমশক্তি বাড়ানো এবং হজমসংক্রান্ত সমস্যা এড়াতে গ্রিন টি এর তুলনা নেই। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ এই গ্রিন টি হজমশক্তি বাড়ায় এবং আমাদের পরিপাকতন্ত্র সুস্থ রাখতে সহায়তা করে। যদি হাতের কাছে গ্রিন টি না পান তবে আদা চা পান করে নিতে পারেন। এতেও অনেক ভালো ফল পাবেন।

৪। ঝাল খাবার

গ্রিন স্টেট ইউনিভার্সিটির একটি গবেষণায় দেখা গেছে, লঙ্কার ক্যাপসাইসিন হজমশক্তি ভালো করতে অনেক বেশি কার্যকরী। খাবার বুঝে শুনে একটু ঝাল দিয়ে খেতে পারলে স্বাভাবিকভাবেই হজমের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

৫। প্রসেসড খাবার এড়ানো

টিনজাত প্রসেসড খাবার খেলে হজমে সমস্যা বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেয়। কারণ খাবারগুলো যখন প্রসেস করা হয় তখন অনেক কেমিক্যাল ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এসব প্রসেস করা খাবারের কারণে হজমে সমস্যার পাশাপাশি পরিপাকতন্ত্র তার কর্মক্ষমতা হারাতে পারে।

৬। ক্যালসিয়াম যুক্ত খাবার

ক্যালসিয়াম আমাদের হজমশক্তি উন্নত করতে বিশেষভাবে কার্যকর। ক্যালসিয়াম আমাদের পরিপাকতন্ত্রকে সঠিকভাবে পরিচালনা করতেও বেশ সহায়তা করে।

Previous ArticleNext Article

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

11 Success Factors of Ecommerce 0 516

success factors of ecommerce

E-commerce is the most latest technology trend across the globe. This is becoming popular day by day among the internet users. E-commerce is basically a platform for online shopping. People check the product online, order, get it delivered to their fingertips easily. This is not only a technology, but also the newest wonder in 21st century. So that many people now-a-days are looking for opening ecommerce business.

Let’s have a look into 11 success factor of building an ecommerce:

01: Variety of SKU
A large variety of products and categories allow for a vast and diverse group of consumers.

02: Content that rocks
The quality of our product data will ultimately determine the quality of the customer experience we offer. With so much scope in digital commerce, customers will often vote with their feet if they don’t find the information they need. Therefore, creating rich product content is key in achieving eCommerce success.

03: Deliver that ordered
Deliver the exact product that customer ordered from our site.

04: Ensure the Stock
Make sure the product is available in the stock when order is placed. Ensure that the customer gets the product at any cost.

05: Deliver Quickly
Fast logistics and quick delivery could mean the difference between a purchase and no purchase. The faster we can get our product to the customer, the higher the chances of purchasing.

06: Return and Refund without question
Returns help to increase the Customer Lifetime Value (CLV) of an e-commerce store. Repeat customers are easier to sell to, spend more on each purchase, share positive posts about brands, and increase overall profitability.

07: Privacy in packaging
Hiding information about the package content ensures the privacy and security of the products as well as helps gain customer satisfaction.

08: Low Price Guarantee
A low price allows us to gain market share by attracting new customers who spread the word about the offering and enticing customers away from competitors. The goal is to rapidly penetrate the market — then eventually raise prices without losing those early adopters.

09: Keep them Engaged
Offer wide variety of solutions in one single platform, ensure the customers get benefitted by surfing our site or app.

10: Culture of Innovation
Innovate new ideas, apply diversified technology, build a culture that encourages the employees to think widely.

11: Easy process overall
The best customer service is when the customer doesn’t need to call you, doesn’t need to talk to you. It just works.

অনেক খেলেও ওজন বাড়ায় না যেসব খাবার 0 900

ওজন না বাড়ানোর খাবার

যারা ওজন কম রাখতে চান, সাধারণত তারা কম খান। তবে কম খাওয়া মানেই ওজন কম রাখা নয় কিংবা বেশি খেলেই ওজন বেড়ে যাবে-এমন কোনো কথা নেই। কিছু খাবার আছে যা প্রচুর পরিমাণে খেলেও আপনার ওজন বাড়বে না। চলুন জেনে নেওয়া যাক এমন কিছু খাবার সম্পর্কে যা প্রচুর খেলেও আপনার ওজন থাকবে নিয়ন্ত্রণে।

পালং শাক : পালং শাক শীতকালের একটি জনপ্রিয় সবজি। এতে আয়রন, জিংক এবং ম্যাগনেশিয়াম, ভিটামিন কে, ভিটামিন এ রয়েছে। শাকটিতে ক্যালরির পরিমাণ খুবই কম। এটি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে। পালং শাকে আয়রন, ফলিত এবং অন্য পুষ্টি উপাদান ত্বক, চুলের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী এবং হিমোগ্লোবিন তৈরিতে সহায়ক।

গাজর : গাজরে রয়েছে ভিটামিন এ, যা চোখের সুস্থতা এবং দৃষ্টির জন্য গুরুত্বপূর্ণ। শীতকালীন এই সবজিতে ক্যালরির পরিমাণ কম, ফাইবার সমৃদ্ধ এবং অন্যান্য পুষ্টিতে ভরপুর। স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে ওজন নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে গাজর।

পপকর্ন : ওজন নিয়ন্ত্রণে সহায়ক চমৎকার খাবার পপকর্ন। প্রতি কাপ পপকর্নে মাত্র ৩০ ক্যালরি থাকে এবং এটি পলিফেনলস নামে এক ধরনের অ্যান্টি অক্সিডেন্ট থাকে যা প্রদাহ কমাতে সহায়তা করে।  এটি হজমক্রিয়া ঠিক রাখে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করে।

সবুজ ডাল : সবুজ ডালে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার এবং পটাশিয়াম রয়েছে, যা ওজন নিয়ন্ত্রণের জন্য উপকারী। এ ছাড়া এটি ফলিত, ম্যাগনেশিয়াম, ভিটামিন বি১, ফসফরাস, আয়রন কপার, পটাশিয়াম এবং জিংকে ভরপুর। এগুলো ত্বকের স্বাস্থ্য, হজমক্রিয়া এবং অন্যান্য জটিল রোগের জন্য উপকারী।

আপেল : বিদেশি ফল হলেও আপেল খুবই সহজলভ্য। এটি বিভিন্নভাবেই ওজন নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। এর গন্ধ ক্ষুধা দমন করে।আপেলে ভিটামিন সি, ভিটামিন কে এবং পটাশিয়াম রয়েছে, যা দ্রুত হজমে সহায়ক এবং ওজন নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।

স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খেয়ে ও ওজন কমানোর উপায় ডায়েট চার্ট মেনে চললে ওজন থাকবে আপনার নিয়ন্ত্রণে, শরীর থাকবে সুস্থ।

আরও পড়ুনঃ<< ১০ মিনিট এই উপায়ে দড়ি লাফালেই কমবে মেদ